ব্যাবসায়িক ট্রেড লাইসেন্স কি ও কিভাবে করবেন?

ট্রেড-লাইসেন্স-কি
ট্রেড লাইসেন্স কি

প্রতিটা ব্যাবসায়ীর ট্রেড লাইসেন্স করা বাধ্যতামূলক। সহজ ভাষায় যদি বলতে চাই, তাহলে বলতে হবে, শিশুরা কোন কিছু করার আগে যেমন তার অভিভাবক এর মৌখিক সম্মতি নেয়, ঠিক তেমনভাবেই আপনি যদি বাংলাদেশে ব্যাবসা করতে চান তবে, বাংলাদেশ সরকার সরকারের কাছ থেকেও আপনাকে অনুমুতি নিতে, তবে হ্যাঁ, এই অনুমুতি মৌখিক কোন অনুমতি না, এটি হল কাগজে-কলমের অনুমুতি, আর এই ব্যাবসা করার অনুমুতি পত্রই ট্রেড লাইসেন্স।


প্রতিটা ব্যাবসায়ীকেই ব্যাবসা করতে গেলে ট্রেড লাইসেন্স করতে হবে, এটি বাধ্যতামূলক। আর যারা ট্রেড লাইসেন্স ছাড়া ব্যাবসা পরিচালনা করছে তাদের ব্যাবসা যত হালাল ই হোক না কেনো, আইনের দৃষ্টিতে ঐ ব্যাবসা বে-আইনি।

এই ট্রেড লাইসেন্সস এর ইংরেজি অর্থ Trade License Trade শব্দের অর্থ ব্যাবসা, License শব্দের অর্থ অনুমুতি

 সকল ব্যাবসায়ীর জন্য এই ট্রেড লাইসেন্স অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়, আমি যে অবৈধ ব্যাবসা করছেন না এই ট্রেড লাইসেন্স ই তার প্রমাণ বহন করবে কেননা বাংলাদেশের নিয়ম অনুযায়ি যে সুকল ব্যাবসা অবৈধ ঘোষনা করা হয়েছে, সেই ব্যাবসার ট্রেড লাইসেন্স সরকার কখনো প্রদান করবে না।

ট্রেড লাইসেন্স ডেমো
ট্রেড লাইসেন্স ডেমো


১) ব্যাবসার স্থান ভাদে ৩ যায়গা থেকে ট্রেড লাইসেন্স করা যায়  সিটি কর্পোরেশন পৌরসভাইউনিয়ন পরিষদ। আপনার ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান টি সিটি কর্পোরেশন এর ভিতরে পড়লে সিটি  কর্পোরেশন থেকে, পৌরসভার ভিতরে পড়লে পৌরসভা থেকে, ইউনিয়ন এর ভিতরে পড়লে ইউনিয়ন এর নির্দিষ্ট স্থান থেকে।

২) ট্রেড লাইসেন্স এর ফিঃ ব্যাবসার ধরন অনুযায়ী ট্রেড লাইসেন্স এর ফি ভিন্ন হয়। নিচের ছবিগুলোতে ব্যাবসার ধরন ও ফি তুলে ধরা হলো।

লিমিটেড কোম্পানি ট্রেড লাইসেন্স
লিমিটেড কোম্পানি

ব্যাংল-বিমা-ও-আর্থিক প্রতিষ্ঠান
ব্যাংল-বিমা-ও-আর্থিক প্রতিষ্ঠান

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান-ও-ট্রেনিং_সেন্টার_প্রভূতি
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান-ও-ট্রেনিং_সেন্টার_প্রভূতি

এইরকম আরো ক্যাটাগরি রয়েছে যা এই আর্টিকেল এ তুলে ধরা সম্ভব নয়। তাই সরকার নির্ধারিত নানান ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান এর ট্রেড লাইসেন্স করার ফি, PDF ফাইলে দেওয়া হলো, ডাউনলোড করে নিন।

৩) ট্রেড লাইসেন্স করতে যা যা লাগবেঃ
ক) ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এর স্থান ব্যক্তিগত হলে সিটি কর্পোরেশনের হালনাগাদ হোল্ডিং ট্যাক্সের রশিদ, নিজের দোকান হলে ইউটিলিটি বিল এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাড়ায় হলে ৩০০ টাকার স্ট্যাম্পে ভাড়ার চুক্তিপত্রে সত্যায়িত ফটোকপি।
খ) কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
গ)ব্যবসা যৌথভাবে পরিচালিত হলে ২০০০ টাকার নন-জুডিশিয়াল ষ্ট্যাম্পে পার্টনার শিপের অঙ্গীকারনামা/শর্তাবলী জমা দিতে হবে।
ঘ) ভোটার আইডী কার্ড

৪) এই সকল তথ্য নিয়ে একটি নির্দিষ্ট ফর্মে আবেদন করতে হবে।



জানার কিছু বিষয়ঃ


  • ট্রেড লাইসেন্স নারী-পুরুষ উভই করতে পারে।
  • ট্রেড লাইসেন্স প্রতি ১ বছর পর-পর নবায়ন করতে হয়।
  • ভিন্নভিন্ন ব্যাবসার জন্য, ভিন্ন ভিন্ন ট্রেড লাইসেন্স করতে হবে।
  • একটি ট্রেড লাইসেন্স একটি ব্যাবসার ক্ষেত্রি ব্যাবহার করা যাবে।
  • ট্রেড লাইসেন্স যার নামে হয়েছে শুধু সেই ব্যাক্তিই এই লাইসেন্স ব্যবহার করতে পারবেন।



সতর্কতাঃ ট্রেড লাইসেন্স করার সময় যাবতীয় তথ্য নির্ভুল ভাবে প্রদান করতে হবে, এবং ট্রেড লাইসেন্স এ উল্লিখিত শর্তাবলি না মানলে ট্রেড লাইসেন্স বাতিল হয়ে যেতে পারে এবং গ্রহীতার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহন করতে পারে।

Artikel Terkait

Hello Guys, I'm IMRAN, passionate blogger. I’m always eager to learn new things. I am web Developer and Loves to play with Codes And Creating new things as a web Designer and specially as a blogger.